সেম্পুর কেমিক্যাল চুলের জন্য ক্ষতিকর? বাড়িতেই তৈরি করুন শ্যাম্পু
সেম্পুর কেমিক্যাল চুলের জন্য ক্ষতিকর? বাড়িতেই তৈরি করুন শ্যাম্পু

চুল নিয়ে চিন্তা প্রায় সবারই আছে।প্রতিদিনের দৌড়ঝাঁপ এ শহরের ধুলোবালিতে চুল জট লেগে যায় এবং কি ধুলাবালির কণা জমে নোংরা হয়ে যায় আপনার চুল। যার আসলে চাকরি করেন তাদের এ ধরনের অভিযোগ অনেক। এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে হাজার হোসেনপুর কোম্পানি এসেছে বাজারে। একে কোম্পানির একেক রকম প্রতিশ্রুতি। কিন্তু এসব শ্যাম্পুর মধ্যে মিশে থাকা কেমিক্যাল ভালোর বদলে আরো ক্ষতি করছে অনেক আপনার চুলকে। চলে এর গঠনের গোড়ায় শক্তি কে আরো মজবুত করার বদলে করে দিচ্ছে দুর্বল।

কিছু শ্যাম্পুতে এমনই ও থাকে সেম্পুর ফরম তৈরীর জন্য থাকে প্রচুর কেমিক্যালস। অনেকেই আছেন যারা বাজারে এই ধরনের শ্যাম্পু ব্যবহার করেন রীতিমতো এই ঝামেলায় ভুগছেন। এখন বাজারের উপর নির্ভরশীল হওয়ার দিন শেষ বাড়িতে আপনি তৈরি করে নিন নিজেই প্রয়োজনমতো সেম্পু। আপনার যদি শুষ্ক চুল হয় তবে তার জন্য এক ধরনের প্রণালী তৈলাক্ত হলে আরেক রকম প্রণালী। নিজের দরকার বুঝে বানিয়ে নিন নিজের জন্য সবচেয়ে ভালো শ্যাম্পু।কি দিয়ে বানাবেন? উপাদানগুলো একেবারে প্রাকৃতিক। এগুলো কিনতে গেলে আপনাকে বেশি খরচ করতে হবে না। কিছু জিনিস তো ফ্রিতে পেয়ে যাবেন এবার তবে বলে ফেলা যাক সেম্পু তৈরি বেশ কয়েকটি ভালো রেসিপি।

১) নো পু’ শ্যাম্পু

সব ধরনের বাড়ি তৈরির শ্যাম্পুর মধ্যে (নো পু) পদ্ধতি কিন্তু সবচেয়ে সহজ। এর উপাদান গুলো আরো সহজ সভ্য মূল্য। এই সেম্পু তৈরি করতে যা যা লাগবে তা হলো 1 টেবিল চামচ বেকিং সোডার আর এক কাপ পানি। এই দুটো জিনিসই হাতের কাছে থাকা জিনিস। পানি তো ফ্রিতেই মিলে। যদি বাজার থেকে পানি কিনতে চান তাহলে তো কিছুটা মূল্য দিতে হতে পারে। সাধারণ পানিতে হবে না তা কিন্তু নয় সাধারণ পানিতেও হবে । প্রণালি তা একরকম প্রথমে এক কাপ পানি আর এক টেবিল চামচ বেকিং সোডা একটা ছোট বাটির মধ্যে ঢালতে হবে। দেখবেন বাটির আয়তন যেন এমন হয় যে পানীয় সূরা ঢালার পর অনেকটা ভরে যায় বাটি। যদি তা না হয় তবে পরিমাণ তার চোখ বুঝে সমান সমান বাড়িয়ে দ্বিগুন করে নিতে হবে। এরপর আর কিছুই না ভালো করে গুলে নিন ভালো করে গুলে নিন এই দুইটি উপাদান। এরপরে ভরে নিন যে কোন সাধারণ বোতলে বা সেম্পুর পুরনো বোতলে আর সময় মতো ব্যবহার করুন। তবে বলে রাখা উচিত যাদের চুল তৈলাক্ত তাদের ক্ষেত্রে এটা উত্তম কাজের জিনিস। চুল যদি শুষ্ক হয় তবে এটা নিয়মিত ব্যবহার না করাই ভালো।সে ক্ষেত্রে চুলে খুশকি দেখা যাবে।

২) নারকেল দুধের শ্যাম্পু

মনে মনে হয়তো বা ভাবছেন যাদের চুল শুষ্ক তাদের জন্য কি উপায়।অবশ্যই তাদের জন্য উপায় আছে। আপনি ব্যবহার করতে পারেন নারকেল তেলের দুধ দিয়ে তৈরি শ্যাম্পু। শুনতে অবাক লাগলেও এটা সত্যি যে আপনার চুলে পুষ্টি সম্ভব আর এ জিনিস খুব কম সময়ের মধ্যে বাড়িতে বানিয়ে ফেলতে পারেন। আর এর জন্য লাগবে বাড়িতে তৈরি করা নারকেলের দুধ আর ক্যাস্টাইলস সুপের একটি বোতল। কে স্টাইল সুপের কুচ শহরের কিছু বড় দোকানে খোঁজ করলেই সহজেই পেয়ে যাবেন। সে সময় যদি না থাকে তবে এ নিয়ে নিন যেকোন অনলাইন থেকে।দাম আপনার সাধ্যের মধ্যেই পেয়ে যাবেন। এই দুটো উপাদান সমান সমান করে নিন একটা বোতলে আর ঝাঁকিয়ে নিন ভালো করে। ব্যবহারের সময় এক চামচ করে নিন।যারা সেম্পুর সুগন্ধি পছন্দ করেন তারা মিশিয়ে নিতে পারেন অল্প মেথন বা ল্যাভেন্ডার তেল ।

৩) অ্যালোভেরা জেল সেম্পু

হ্যাঁ এ জিনিসও আপনার সাধ্যের মধ্যেই। অ্যালোভেরা গুনের কথা তো আর সব আপনাদের অজানা নয়। বাড়িতে এলোভেরা চারা বসিয়ে নিলে কয়েকদিনের মধ্যেই আপনি পেয়ে যাবেন অ্যালোভেরা জেল। জল এলোভেরার জল গ্লিসারিন আর তরল স্যুপ পরিমাণে মিশিয়ে নিন একটা পাত্রে। এটা চুলের দিয়ে কিছুক্ষণ বসে ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন চুল।

তাহলে আপনি তো জেনে নিলেন বাজারে শ্যাম্পুতে কি ধরনের কেমিক্যাল ব্যবহার করা হয়। আর আপনি কিভাবে খুব সহজে হাতে হাতে ঘরে বসেই শ্যাম্পু তৈরি করতে পারেন তা তো আমরা জানিয়ে দিলাম যদি কোন রকমের সমস্যায় পড়েন তাহলে আমাদেরকে কমেন্ট করে জানান বা আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ নাম্বারে নক করুন আমরা তাৎক্ষণিক আপনাকে সমাধান দেওয়ার চেষ্টা করব বা আমাদের ফেসবুক পেইজে ও যোগাযোগ করতে পারেন।