বিউটি টিপস
সৌন্দর্য এবং হেলথ টিপস

মেকআপ এর এ টু জেড | Makeup Tips In Bangla

0 4

মেকআপ এর এ টু এরকম বোধয় কাউকেই খুঁজে পাওয়া যাবেনা, যার মেকআপ করতে ভালো লাগেনা. কিন্তু মেকআপ করাটা একটা শিল্প আর এরকম কোনো কথা নেই যে সবাই এই শিল্পে পারদর্শী হবে. মেকআপ একটা বিশাল বিষয়. মেকআপ করার পদ্ধতি, মেকআপ (Makeup) করার সময়কার ছোটছোট ব্যাপার মনে রাখা এবং সেগুলোকে সঠিকভাবে কাজে লাগানো, মেকআপ করার সময়কার কিছু ভুল – ত্রূটি সবই এই বিষয়ের অন্তর্গত. কেউ বাড়ি থেকে বেরোনোর আগে কমপ্লিট মেকআপ করে বেরিয়ে, আবার অনেক মেয়ে একটু কাজল আর লিপস্টিক লাগানোকেই তাদের মেকআপ হিসেবে ধরে নেয়. একেক জনের কাছে মেকআপ-এর সংজ্ঞা একেকরকম. অনেকেই আবার মেকআপ করতে ভালোবাসে কিন্তু সঠিক টিপসের জ্ঞান না থাকায় তারা মেকআপ করে না বা করতে পারে না. আমরা এখানে আপনাকে মেকআপ (Makeup) সম্বন্ধে খুঁটিনাটি সমস্ত তথ্য দেব. আশা করি, এরপর থেকে আপনাকে আর নিজের মেকআপ করার জন্য পার্লারে ছুটোছুটি করতে হবে না.

মেকআপ-এর সরঞ্জাম – How To Do Makeup In Bangla

মেকআপ এর এ টু মেকআপ করার জন্য সবার আগে যা দরকার সেগুলি হলো মেকআপ করার সরঞ্জাম, যা আপনি খুব সহজেই বাজারে বা অনলাইন সাইটে পেয়ে যাবেন. যখনি কোনো মেকআপ-এর সরঞ্জাম কিনবেন, মাথায় রাখবেন যেন সেটা আপনার গায়ের রঙের সাথে সামঞ্জস্য বজায় রেখে কেনা হয়. আর সব সময় জেনুইন প্রোডাক্ট কেনা উচিত. টিভিতে বিজ্ঞাপন দেখে কিংবা সেলসম্যানের কথায় ভুলে আজেবাজে প্রোডাক্ট একেবারেই কিনবেন না. ল্যাকমে, মেবিলিন নিউইয়র্ক, লরিয়েল, কালারবারের মতো বেশ কয়েকটি কোম্পানি নানান স্কিনটোন অনুযায়ী তাদের প্রোডাক্ট বাজানে নিয়ে এসেছে. আপনি শুধু আপনার স্কিনটোন অনুযায়ী নিজের পছন্দের ব্র্যান্ডের প্রোডাক্টটা কিনবেন. ভালো করে মেকআপ করতে গেলে আপনার কাছে কিছু ভালো ব্রান্ডের মেকআপ (Makeup) প্রোডাক্ট থাকাটা জরুরি. আপনাকে সেই প্রোডাক্টগুলো সম্বন্ধেই এখন জানাবো –

ফাউন্ডেশন – Foundation

মেকআপ এর এ টু মেকআপ করার সময় সবার আগে ফাউন্ডেশন লাগাতে হয়, অর্থাৎ ফাউন্ডেশন হলো যে কোনো মেকআপ-এর ভিত বা বেস। আর বেস মেকআপ করার পদ্ধতি যদি ভালো না হয় তাহলে পুরো মেকআপ টাই জলে। সাধারণত ভারতীয় স্কিনটোন অয়েলি, ড্রাই, মিক্স, নর্মাল. লাইট আর ডার্ক হয়ে থাকে. ফাউন্ডেশনের টোনও এই সব স্কিনটোনের কথা মাথায় রেখেই তৈরী করা হয়. সেইজন্য যখনি ফাউন্ডেশন কিনবেন, দেখে নেবেন যে আপনার গায়ের রঙের সাথে ফাউন্ডেশনের কোন রঙটা সবচেয়ে বেশি ব্লেন্ড হচ্ছে. ফাউন্ডেশন কেনার সময় আপনার বুড়ো-আঙ্গুল আর তর্জনীর মাঝের অংশে লাগিয়ে দেখুন, যে শেডটা সবচেয়ে ভালো করে মিশে যাচ্ছে, সেটাই কিনুন. চাইলে আপনি গলায় লাগিয়েও দেখতে পারেন.

কনসিলার – Concealer

মুখের দাগ-ছোপ, চোখের তোলার কালোভাব (Dark Circle), লালচে ছোপ ইত্যাদি লুকোনোর জন্য কনসিলার ব্যবহার করা হয়. এমনকি, ব্রণও ঢাকা পরে যায় কনসিলারে. যদি আপনার গায়ের রং ফর্সা হয়, তাহলে কনসিলার কেনার সময় অবশ্যই নিজের মুখের রঙের সাথে ভালোভাবে ব্লেন্ড হচ্ছে এমং শেডই কিনবেন. যদি আপনার চোখের নিচে কালি থাকে, তাহলে তো এটা আরো বেশি জরুরি.

আইলাইনার – Eye Liner

চোখের মেকআপ করার জন্য আইলাইনার একটি অত্যন্ত জরুরি প্রোডাক্ট. চোখের শেপকে আরো সুন্দর করতে এর তুলনা হয়না. আইলাইনার দিয়ে নানারকমের স্টাইলে চোখ আঁকা যায়, যা প্রতিবার আপনাকে এক একটা নতুন লুক দেয়. আপনি লিকুইড কিংবা পেন্সিল লাইনার ব্যবহার করতে পারেন. এমনিতে তো কালো আইলাইনারের চলই বেশি, কিন্তু আপনি চাইলে গতানুগতিক পদ্ধতি থেকে সরে নীল, গাঢ় সবুজ বা অন্যান্য যে কোনো রং নিয়ে এক্সপেরিমেন্ট করতেই পারেন.

মাস্কারা – Mascara

সুন্দর লম্বা ঘন চোখের পাতা পাওয়া সব মেয়েরই আকাঙ্খা. মাস্কারা আপনার সেই ইচ্ছেটাই পূরণ করতে সাহায্য করে. আপনার চোখের পাতা যাতে ঘন দেখায় তার জন্য সঠিকভাবে মাস্কারা লাগাতে হবে. মাস্কারা লাগানোর আগে চোখের পাতা আইল্যাশ কার্লার দিয়ে কার্ল করে নিন, এতে মাস্কারা লাগানোর পর চোখের পাতা আরো সুন্দর দেখতে লাগে.

আই শ্যাডো – Eye Shadow

Cosmetics Tips In Bengali POPxo 2

চোখের সৌন্দর্য বাড়াতে আই শ্যাডো ব্যবহার করা হয়. আপনার গায়ের রং হিসেবে আই শ্যাডোর শেড বাছাটা জরুরি. যদি আপনার রং শ্যামলা হয় তাহলে গোল্ড, কপার, মিক্স ব্রাউন, বেজ এইসব শেডের আই শ্যাডো লাগান. আবার যদি আপনি ফর্সা হন, তাহলে লাল, নীল, পার্পল, সবুজ, গোলাপি, গোল্ড এইসব রং খুব সুন্দর মানাবে.

লিপস্টিক – Lipstick

Cosmetics Tips In Bengali POPxo 1

লিপস্টিক এমন একটা প্রোডাক্ট, যেটা সব মেয়ের মেকআপ বক্সে থাকবেই থাকবে. লিপস্টিক একদিকে যেমন আপনার সাজ সম্পূর্ণ করে, আবার অন্যদিকে সুন্দর সাজ নষ্টও করে দেয়. সেইজন্যই লিপস্টিক খুব ভেবেচিন্তে বাছতে হয়. যদি আপনি প্রথমবার নিজের জন্য লিপস্টিক কিনতে যান, তাহলে নানারকম শেড ট্রাই করুন. প্রতিটা শেড নিজের হাতে লাগিয়ে দেখুন. দরকার হলে সেলসম্যান/গার্লের সাহায্য নিন. যদি আপনি একটু শ্যামলা হন, তাহলে লালচে, মারুন, ব্রাউনের মতো একটু গাঢ় রং আপনাকে মানাবে. আবার যদি আপনার রং ফর্সা হয়, সফ্টপিঙ্ক, নিয়ন শেডস, অরেঞ্জ এগুলো ভালো লাগবে.

মুখের গড়ন অনুযায়ী মেকআপ

আপনি কি জানেন যে মুখের গড়ন অনুযায়ী মেকআপ করা হয়? এখানে এমনই কিছু মুখের গড়ন আর তার জন্য উপযুক্ত মেকআপ পদ্ধতি সম্পর্কে জানাবো-

গোলাকার মুখ

Cosmetics Tips In Bengali POPxo.jpg-3

গোল মুখ দেখতে যতটা সুন্দর লাগে, ঠিক ততটাই বড়োও লাগে. গোল মুখের জন্য চোখের মেকআপ খুব গুরুত্বপূর্ণ. এছাড়া গোল মুখকে পাতলা দেখানোর জন্যও মেকআপ করা হয়. এক্ষেত্রে কন্টোরিং একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে. কনসিলার আর ফাউন্ডেশনের সাহায্যে আপনি সহজেই কন্টোরিং করতে পারেন. গোলাকার আকৃতির মেয়েদের চোখে মোটা করে কাজল বা ডার্ক আই শ্যাডো ব্যবহার করলে ভালো লাগে দেখতে. ব্লাশ লাগানোর সময়ে গালে কোণাকুণিভাবে স্ট্রোক লাগান, এতে শুধু চিকবোন হাইলাইট হয় তাই নয়, দেখতেই স্লিম লাগে.

চৌকো মুখ

Anushka

চৌকো মুখের কন্টোরিংয়ের জন্য ম্যাট শেড বাছুন. শেড বাছার সময়ে খেয়াল রাখবেন তা যেন আপনার স্কিনটোনের থেকে ১ বা ২ শেড ডার্ক হয়. চৌকো মুখের অ্যাঙ্গেলগুলো কভার করার জন্য আই মেকআপ-এর ওপর জোর দিন. চোখের চারদিকে রং অ্যাড করা দরকার, এতে আপনার মুখের আকার স্পষ্ট হবে.

ডায়মন্ড শেপের মুখ

Cosmetics Tips In Bengali POPxo.4

এই শেপের মুখ চিকবোনের থেকে চওড়া হলেও চোয়াল আর কপাল সরু হয়. এই শেপের মুখের কন্টোরিং করার জন্য জ-লাইন (চোয়াল) আর কপাল একটু চওড়া আর চিকবোন পাতলা করে দেখাতে হয়. ব্লাশ চিকবোনে লাগান, তার নিচে নয়. গোলাপি ব্লাশের বদলে ডার্ক পিচ অথবা ব্রাউন শেড বাছুন. কপাল চওড়া দেখানোর জন্য দুই ভুরুর মাঝে একটু জায়গা ছাড়ুন. যখন লিপস্টিকের শেড বাছবেন, গ্লসি লিপ কালারের বদলে ম্যাট শেড নিন আর ঠোঁট একটু ভরাট করে �

Beauty tips English

মন্তব্য
Loading...